উপকূলে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব, জোয়ারের পানিতে ভাসছে নিম্নাঞ্চল

নিজস্ব প্রতিবেদক: (প্রকাশের তারিখ: 25-Oct-2022)
ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি


ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাব পড়েছে চট্টগ্রামের বাঁশখালীর উপকূলীয় অঞ্চলে। গত ২৪ অক্টোবর রাত ১০টার দিকে বাড়তে থাকে জোয়ার। অতিরিক্ত জোয়ারের প্রভাবে বেড়িবাঁধ ভেঙে কোথাও কোথাও উপচে পড়ে বাঁধ বেয়ে উপকূলীয় এলাকার খানখানাবাদ, বাহারচড়া, সরল, কাথরিয়া, গন্ডামারা, শিলকূপ, চাম্বলের পশ্চিমাঞ্চল, শেখেরখীল, পুঁইছড়ি, ছনুয়ার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়।

বড় ধরণের কোনো দুর্ঘটনা না ঘটলেও এতে নিম্নাঞ্চলের প্রায় ৭০ ভাগ বসতঘরে জোয়ারের পানি প্রবেশ করেছে। বাঁশখালীতে উপকূল সংলগ্ন বিভিন্ন ইউনিয়নে নিম্নাঞ্চল পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তলিয়ে গেছে মাছের ঘের, পুকুর ও রাস্তাঘাট।

জলাবদ্ধতার কবলে পড়ে অনেক এলাকায় পানিবন্দি হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ধানি জমিসহ ফসলি বিভিন্ন জমি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। গতকাল দিনভর বৃষ্টিবর্ষণ ও ধমকা হাওয়া বাতাসে বিভিন্ন এলাকায় গাছ পড়ে বিচ্ছিন্ন আছে বিদ্যুৎ সংযোগ।

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে সমুদ্রের জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ৩-৪ ফুট পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় তলিয়ে গেছে বিভিন্ন ধরণের ফসলি জমি। উপজেলার নিম্নাঞ্চলে সবজি ক্ষেত ও ধানি জমি পানিতে ডুবে গেছে। এতে ক্ষেত নষ্ট হয়ে কৃষকদের অপূরণীয় ক্ষতির আশংকা করছে। প্রায় ২৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হলেও স্বপ্নের টেকসই বেড়িবাঁধ এখনো অধরাই থেকে গেল। বাঁশখালীর প্রায় ২৬ কিলোমিটার সমুদ্র সৈকত এলাকার বৃহত্তম অংশ জুড়ে এখনো অরক্ষিত বেড়িবাঁধ।

বর্ষা আসলে, প্রাকৃতিক দুর্যোগ আসলে এখনো ভয়ে নির্ঘুম রাত পোহাতে হয় উপকূলের লোকজনকে। বিশেষ করে খানখানাবাদ, বাহারছড়া অংশে, সরলে, শীলকূপের জালিয়াখালী জলকদরখাল সংলগ্ন বেড়িবাঁধ, গন্ডামারা-শীলকূপ হয়ে পশ্চিম চাম্বল জলকদর খাল, বাংলাবাজার হয়ে শেখেরখীল ফাঁড়িরমুখ, ছনুয়াসহ এসব উপকূলীয় অঞ্চলে এখনো নির্মাণ করা হয়নি পূর্ণাঙ্গ টেকসই বেড়িবাঁধ। জোয়ারের মাত্রা বেড়ে গেলে, বৃষ্টি-বন্যায় সহসা পানি ডুকে পড়ে এ অঞ্চলের লোকালয়ে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে গত রাতে জালিয়াখালী জলকদর খালের বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে শীলকূপ ২ নম্বর ওয়ার্ডের লোকালয়ে, ১ নম্বর ওয়ার্ডের নয়াঘোনা, নুরু মার্কেট এলাকায়, চাম্বলের পশ্চিম চাম্বল গোলাখালী বেড়িবাঁধ ভেঙে পানি প্রবেশ করেছে লোকালয়ে।

শেখেরখীলের ছনুয়া-শেখেরখীল সংযোগ ব্রিজ হতে সরকার বাজার পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার জুড়ে বেড়ীবাঁধ বেয়ে জোয়ারের পানি প্রবেশ করে। পুইছড়ির দক্ষিণ পুঁইছড়ি, পশ্চিম পুঁইছড়ির লোকালয়ে জোয়ারের পানি প্রবেশ করে। গন্ডামারার বড়ঘোনার অরক্ষিত বেড়িবাঁধ বেয়ে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করে। ছনুয়ার বিভিন্ন অংশে বেড়িবাঁধ উপচে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করে।খানখানাবাদ-কদমরসূল-প্রেমাশিয়া অংশে বেড়ীবাঁধ ছুঁইয়ে পানি প্রবেশ করেছে। যার ফলে বসতঘরে পানি ঢুকছে, তলিয়ে গেছে নিম্নাঞ্চল।

শেখেরখীল থেকে স্থানীয় মোর্শেদুল হক বলেন, আমাদের শেখেরখীল ব্রিজ হতে সরকার বাজার পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার বেড়িবাঁধ অরক্ষিত। গতকাল রাতের জোয়ারের পানি অতিরিক্ত বেড়ে যাওয়ায় বাঁধ ভেঙ্গে কয়েকটি পয়েন্টে জোয়ারের পানি প্রবেশ করে লোকালয়ে। এতে সংলগ্ন এলাকার ৯৫ ভাগ বসতঘরে পানি প্রবেশ করেছে বলে জানান। তলিয়ে যায় মাছের প্রজেক্ট ও ধানি জমি। যে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগে এ অঞ্চলের লোকজন থাকে আতংকে।

শীলকূপ ইউপির সদস্য সিদ্দিক আকবর বাহাদুর বলেন, জোয়ারের পানি বেড়ে যাওয়ায় জালিয়াখালী জলকদর খালের ২ নম্বর ওয়ার্ড এলাকায় বাঁধ ভেঙে লোকালয়ে পানি ঢুকেছে। এতে নোয়াপাড়া, হেডপাড়ার বেশকিছু বসতঘরে পানি ঢুকেছে। এ এলাকার লোকজন এখনো পানিবন্দি।

সরল থেকে বোরহান উদ্দিন বলেন, ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে অতিরিক্ত জোয়ারের ফলে আমাদের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়। এতে অনেক কৃষকের জীবন জীবিকার স্বপ্নের টমেটো ক্ষেত ডুবে যায়। এতে করে তারা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর